বাউফলে নবম শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ

রবিবার ২৯ মে ২০২২ ০১:০২


রইসুল ইমন, পটুয়াখালী::
পটুয়াখালীর বাউফলে ৯ম শ্রেণির শিক্ষার্থীকে ঘরে একা পেয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে। শনিবার (২৮ মে) রাতে স্থানীয় সাংবাদিকদের বিষয়টি জানায় ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর পরিবার।
মিরাজ খান নামের এক যুবকের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ এনেছে শিক্ষার্থী ও তার পরিবার।শুক্রবার (২৭মে) দুপুর ২টার দিকে উপজেলার কাছিপাড়া ইউনিয়নের পশ্চিম কাছিপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।
ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর মা জানান, আমার বসত ঘরের বিদ্যুৎ বিল বকেয়া থাকায় বিদ্যুৎ অফিস বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেয়, বকেয়া টাকা পরিশোধ করার জন্য বাজারে যাই। ওই সময় প্রচন্ড ঝড়বৃষ্টির কারণে  কাছিপাড়া বাজারে আটকা পড়ি। এসময়ে বাড়িতে বসবাসরত পুরুষরা মসজিদে জুম্মার নামাজ পড়তে যায়। এই সুযোগে ভুক্তভোগীকে ঘরে একা পেয়ে মিরাজ খান তার সাথে অশালীন আচরণ করলে তার চিৎকার শুনে পাশের ঘরের চাচি ফরিদা(২৮)ও লাইজু বেগম(২৬) ছুটে এলে মিরাজ খান পালিয়ে যান।
ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী সাংবাদিকদের বলেন, মিরাজ খান এর আগেও অর্থাৎ সাত দিন আগে আমি মাদ্রাসা থেকে আসার সময় রাস্তার মধ্যে আমার হাত ধরে টান দেয়, আমি তখন লজ্জায় কারো কাছে বলিনি। কিন্তু আজকে আমার মা-বাবা বাড়িতে না থাকায় এই ঝড়বৃষ্টির মধ্যে বাসায় আমাকে একা পেয়ে আমাকে জোরপূর্বক আমার সাথে অসভ্যতা করে। পরে আমি চিৎকার শুরু করলে পাশের ঘরের চাচি (ফরিদা বেগম) আসলে মিরাজ পালিয়ে যায়। পরে আমার চাচি স্থানীয় মেম্বার ও চেয়ারম্যান কে জানান।  তারা পুলিশকে জানালে পুলিশ ঘটনাস্থলে আসে।
 
এবিষয়ে মুঠোফোনে মিরাজ খানের কাছে জানতে চাইলে, তিনি ধর্ষণ চেষ্টার ঘটনা অস্বীকার করেন এবং মুঠোফোনের লাইনটি দ্রুত কেটে দেন।
এবিষয়ে বাউফল থানার ওসি আল মামুন বলেন, "ধর্ষণের চেষ্টার ঘটনা শুনেছি এবং ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছি। তদন্ত করে ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেলে ধর্ষকের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এমএসি/আরএইচ