প্রেমের ফাঁদে ডেকে নিয়ে হত্যাচেষ্টা; আটক ৪

শনিবার ৪ জুন ২০২২ ১৮:০৮


মোঃইব্রাহিম, নোয়াখালী প্রতিনিধি 
নোয়াখালীর সোনাইমুড়ীতে মো: সুমন (২২) নামের এক যুবককে প্রেমের ফাঁদে ফেলে মোবাইলে ডেকে নিয়ে কিশোর গ্যাং এর সন্ত্রাসীদের দ্বারায় হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
শুক্রবার বিকেল ৫টার দিকে উপজেলার সোনাইমুড়ী-চাটখিল মহাসডকের পাশে নবনির্মিত মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবনের সামনে এ ঘটনা ঘটে।মামলা ও ভুক্তভোগীসূত্রে জানা যায়,বিগত ১ মাস পূর্বে পার্শ্ববর্তী জেলা লক্ষ্মীপুর এর রামগঞ্জ পৌরসভার খোনার বাড়ীর আমির হোসেনের মেয়ে আকলিমা আক্তার রুমি (২৩) মোবাইলে পরিচয় হয় বেগমগঞ্জ থানাধীন নরোত্তমপুর গ্রামের নুরুল ইসলাম মিয়ার ছেলে মোঃ সুমন (২২) এর সাথে। পরিচয়ের সূত্র ধরে তাদের দুজনের একাধিকবার মোবাইলে কথা হয়। শুক্রবার বিকেলে ঐ কিশোরী রুমি সুমনকে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে সোনাইমুড়ী মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সের সামনে আসতে বলে। সুমন সরলমনে বিকেল ৫টার দিকে তার বন্ধু চৌমুহনী পৌরসভার করিমপুর এলাকার শাহ জাহানের ছেলে মোঃ ইয়াছিনকে সঙ্গে নিয়ে ঐ স্থানে যায়। সেখানে দেখে বেগমগঞ্জ উপজেলার নরোত্তমপুর ইউপির নরোত্তমপুর গ্রামের চিহ্নিত কিশোর গ্যাং এর সদস্য সেলিম মিয়ার ছেলে শান্ত (২০), একই গ্রামের এসহাক মিয়ার ছেলে রায়হান (২০), মাহবুবুর রহমানের ছেলে মেহেদী হাসান (২০) ও প্রেমিকা আকলিমা আক্তার রুমিসহ অজ্ঞাতনামা আরও তিন থেকে চারজন।সন্ত্রাসীরা পূর্বপরিকল্পনা অনুযায়ী পরস্পর যোগসাজশে ঘটনাস্থলে পৌছার সাথে সাথেই সুমনকে আটক করে কিল-ঘুষি-লাথি মারতে থাকে। এ সময় সুমন মাটিতে লুটিয়ে পড়লে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে তার দুই পায়ে মারাত্বক জখম করে। এক পর্যায়ে একটি ধারালো ছোরা দিয়ে সুমনকে জবাই করতে চাইলে তার চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে এসে কিশোর গ্যাং এর ৩ সন্ত্রাসী ও প্রতারক প্রেমিকা রুমিকে আটক করে। এ সময় বাকী আরও ৩/৪ সন্ত্রাসী পালিয়ে যায় বলে স্থানীয় লোকজন জানায়।
খবর পেয়ে সোনাইমুড়ী থানা পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে শান্ত, রায়হান, মেহেদী ও প্রতারক প্রেমিকা আকলিমা আক্তার রুমিকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। পুলিশ এ সময় রক্তাক্ত অবস্থায় সুমনকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য নোয়াখালী ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে প্রেরণ করে ।এ ঘটনায় ভিকটিমের বড় ভাই নুর হোসেন বাদী হয়ে সোনাইমুড়ী থানায় একটি হত্যা চেষ্টা মামলা দায়ের করেন।
সোনাইমুড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) হারুন অর রশিদ ঘটনার সত্য্যতা নিশ্চিত করে জানান, আটককৃতরা কিশোর গ্যাং এর সক্রিয় সদস্য বলে জানতে পারি। এদের বিরুদ্ধে বেগমগঞ্জ থানায় হত্যা মামলাসহ একাধিক মামলা রয়েছে বলে জানা যায়। এ ঘটনায় সোনাইমুড়ী থানায় মামলা হয়েছে। ধৃত আসামীদের বিজ্ঞ আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। বাকীদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

এমএসি/আরএইচ