চট্টগ্রামে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের অব্যাহতি চিঠি

মঙ্গলবার ১৮ জানুয়ারী ২০২২ ১৩:৩৩


ইব্রাহিম আল সোহাগ, চট্টগ্রাম:
চট্টগ্রামের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ‘আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রাম’ (আইআইইউসি) এ চলছে চাকুরি হতে অব্যাহতি আতঙ্ক। প্রতিষ্ঠানটি থেকে আকস্মিকভাবে তিন শিক্ষক ও ছয় কর্মকর্তাকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। অব্যাহতির কারণ হিসেবে চিঠিতে বিস্তারিত কিছু উল্লেখ করেনি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

শুধু লেখা হয়েছে, ‘আপনার সার্ভিসের আর প্রয়োজন না থাকায় ১৫ জানুয়ারি থেকে থেকে আপনাকে চাকরি থেকে অব্যাহতি প্রদান করা হয়েছে।’ প্রতিদিনের ন্যায় গত শনিবার কর্মস্থলে গিয়ে অব্যাহতির চিঠি পেয়ে বিস্মিত ওই শিক্ষক-কর্মকর্তারা। এই অব্যাহতির কারণ জানা নেই কারোই। ভয়ে আছেন অনেক শিক্ষক-কর্মকর্তা ও কর্মচারি। কখন যেন তাদের কেও এই ভাবে চাকুরি হতে অব্যাহতি দেয়া হয়।

অব্যাহতি পাওয়া শিক্ষকরা হলেন- ইংরেজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মুহাম্মদ কাওসার আহমেদ, বিবিএ অনুষদের শিক্ষক সায়মা হক ও সেন্টার ফর ইউনিভার্সিটি রিকোয়ারমেন্ট কোর্সের শিক্ষক নুরনবী। কর্মকর্তারা হলেন- একাডেমিক অ্যাফেয়ার্স বিভাগের পরিচালক মরতুজা আলী, স্টুডেন্ট অ্যাফেয়ার্স বিভাগের উপপরিচালক চৌধুরী গোলাম মাওলা, গ্রন্থাগারের সহকারী পরিচালক নুরুল কবির খান, আনোয়ার হোসাইন নূরী, রেজাউল করিম ও প্রকৌশল দপ্তরের মো. শোয়াইব।

বিশ্ববিদ্যালয়টির শিক্ষার্থীদের ফেসবুক পেজে শিক্ষক-কর্মকর্তাদের অব্যাহতির বিষয়টি ছড়িয়ে পড়লে বেশির ভাগই এ নিয়ে সমালোচনা ঝড় শুরু করেন। শিক্ষার্থীরা বলছেন, যেসব শিক্ষককে চাকরিচ্যুত করা হয়েছে, তাঁরা সবাই জনপ্রিয়। শ্রেণিকক্ষে এসব শিক্ষকের বাচনভঙ্গি ও উপস্থাপনা কৌশলও দারুণ। এমন শিক্ষকদের কোনো কারণ ছাড়া এভাবে অব্যাহতি দেওয়ায় তাঁরা বিস্মিত। অনেকে আবার চিঠির ভাষা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন। বলেছেন, চিঠিতে যেভাবে ‘আপনার সার্ভিসের আর প্রয়োজন না থাকায়’ উল্লেখ করা হয়েছে, তা দীর্ঘদিন বিশ্ববিদ্যালয়ে সেবা দেওয়া শিক্ষক-কর্মকর্তাদের অপমানের শামিল।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তণ ছাত্রী কাজী জেরিন বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মুহাম্মদ কাওসার আহমেদ এর বিষয়টি উল্লেখ করে তার ফেসবুকে লিখেন, স্যার কে নিয়ে কি বলবো, কোথা হতে শুরু করবো জানিনা। ডিপার্টমেন্টের প্রতিটি ছাত্র-ছাত্রীর ভীষণ পছন্দের শিক্ষক তিনি, এ ব্যাপারে কোন সন্দেহ নেই। ‘আল্লাহ হ্যাজ এ গ্রেট প্ল্যান ফর ইউ স্যার’।

অব্যাহতি পাওয়া শিক্ষকদের একজন বলেন, ‘এই বিশ্ববিদ্যালয়ে দীর্ঘদিন সেবা দিলাম। কিন্তু যেভাবে চিঠি দেওয়া হয়েছে, তা শিক্ষকসুলভ ছিল না। চূড়ান্ত অপমানিত বোধ করছি।’

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডের কুমিরায় অবস্থিত এই বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের মালিকানা নিয়ে গত বছরের শুরুতে দুই পক্ষের মধ্যে বিরোধ বাঁধে। পাল্টাপাল্টি ট্রাস্টি, উপাচার্য, ট্রেজারার, রেজিস্ট্রার নিয়োগের ঘটনাও ঘটে। শেষ পর্যন্ত জামায়াতে ইসলামীর নায়েবে আমির ও সাবেক সাংসদ আ ন ম শামসুল ইসলামের নিয়ন্ত্রণে থাকা বিশ্ববিদ্যালয়টির কর্তৃত্ব চলে যায় চট্টগ্রামের সাতকানিয়া-লোহাগাড়া আসনের সাংসদ আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামুদ্দিন নদভীর হাতে।

আগের ট্রাস্টি বোর্ড বাতিল করে নদভীকে চেয়ারম্যান করে ২১ সদস্যের নতুন বোর্ড অনুমোদন দেয় শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এরপর থেকে এই ট্রাস্টি নিজেদের মতো করে ঢেলে সাজাতে শুরু করে। শুরুতে বেশ কিছু অফিস সহকারীকে ছেঁটে ফেলা হয়। কয়েকমাস আগে একজন প্রকৌশলীসহ বেশ কিছু কর্মকর্তাকেও অব্যাহতি দেয় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। এবার কোপ পড়ল শিক্ষকদের ওপর।

এ নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন শিক্ষক বলেন, ‘এখন বিশ্ববিদ্যালয়ে সকালে চাকরি থাকলেও দেখা যাচ্ছে বিকেলে নেই। কখন চাকরি চলে যায়- এই নিয়ে সবার মধ্যে উদ্বেগ কাজ করছে।’

শিক্ষক কর্মকর্তাদের অব্যাহতি দেওয়ার চিঠিতে সই করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার মুহাম্মদ শফীউর রহমান। কিন্তু একাধিকবার তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও কথা বলা সম্ভব হয়নি।

 

এমএসি/আরএইচ