গাজীপুর অবাধে চলছে মদের বার হানিমুন, ধ্বংস হচ্ছে যুব সমাজ

বৃহস্পতিবার ১৩ জানুয়ারী ২০২২ ১৬:৩৪


রাসেল শেখ, গাজীপুর প্রতিনিধি:

উন্মুক্ত মদের বার, কোন প্রকার নিয়ম কানুন বা আইনের তোয়াক্কা না করে, অদৃশ্য শক্তির প্রভাবে গাজীপুর মহানগরের জনবহুল এলাকা চৌরাস্তায় নির্বিঘ্নে চলছে, 'হানিমুন' নামক মদের দোকান। ২০১৮ সালের মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন অনুযায়ী, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের অনুমতি ব্যতীত কোন প্রাপ্ত বয়স্ক ব্যক্তি মদের বারে গিয়ে মদ পান করতে পারবেনা। আর লাইসেন্স বিহীন কোন ব্যক্তিকে মদের বারের কর্তৃপক্ষও বারে প্রবেশ করানো সম্পূর্ণ বেআইনী। আইন অনুযায়ী মদ পানে লাইসেন্সধারী ব্যক্তি সর্বোচ্চ নয় লিটার মদ বহন করার কথা রয়েছে বলে জানিয়েছেন মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. আব্দুস সবুর মন্ডল।

মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন অনুযায়ী, অনুমোদন (পারমিট বা লাইসেন্স) নেই এমন কোনো ব্যক্তির কাছে মাদক কেনাবেচা ও পান করা আইনত অপরাধ। কিন্তু এই বারে মাদকদ্রব্য কেনাবেচায় সেই নিয়ম মানা হচ্ছে না। অনুমোদন ছাড়াই যে কেউ সেখান থেকে মাদক ক্রয় করতে পারছেন এবং এই শহরের প্রত্যন্ত অঞ্চলে এই মদ ছড়িয়ে যাচ্ছে, এ বিষয়ে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের ভূমিকা জানতে চাইলে ডিএনসি'র মহাপরিচালক বলেন, অনিয়মতান্ত্রিক ভাবে কোন মদের বার পরিচালিত হলে সেগুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, হানিমুন নামক এ বারে গাজীপুর জেলার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে বিভিন্ন শ্রেণী পেশার লোকজনের উপস্থিতি কোন অংশে কমতি নেই। শ্রমিক দিনমজুর থেকে শুরু করে বিশেষ করে স্কুল-কলেজের ছাত্র যে কেউ অনায়েসে এ মদের বারে প্রবেশ এবং পার্সেল বহন করতে পারেন। পারমিটধারীদের ৯ লিটার মদ বহন করার কথা থাকলেও বার কর্তৃপক্ষ সে সবের কোনো তোয়াক্কাই করছে না।
ওই এলাকার এক ভ্রাম্যমান চা,পান, সিগারেট বিক্রেতা বলেন, 'ভাই নিউজ কইরা আর কি লাভ? এরা(মদের বার কর্তৃপক্ষ) টাকা দিয়া সব করতে পারে, আপনার নিউজে কোন কাম হইতোনা। যেমনে চলতাছে এমনেই চলবো, বুইড়া, কড়া, জুয়ান যেমনে যাইতাছে আর খাইতাছে! লেহালেহী কইরা কিচ্ছু হইবোনা সবই টেকার খেলা ভাই সবই টেকার খেলা, বুঝলেন কিছু'।

এ চা-সিগারেট বিক্রেতা আরো জানান, অন্যান্য জায়গার তুলনায় এ মদের বারের আশেপাশে থাকলে সিগারেট বিক্রি বেশি হয় তার। পরিশেষে এ বিক্রেতা বলেন 'পত্রিকায় আবার আমার নামটাম দিয়েন না, হুনছি এগো নাকি অনেক লম্বা হাত, আমি হকারি কইরা সংসার চালাই'।

এদিকে দেশকে মাদকমুক্ত করতে বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার কঠোর অবস্থান পালন করছে। এ সরকারের আমলে মাদক প্রায় জিরো টলারেন্সে নেমে এসেছে। সরকারের মাদক বিরোধী কার্যকরী কর্মকাণ্ড আন্তর্জাতিক ভাবে প্রশংসার জায়গা দখল করে নিয়েছে।

গাজীপুরকে মাদকমুক্ত করতে বদ্ধ পরিকর বলে মন্তব্য করেন গাজীপুর মহানগর আওয়ামী যুবলীগের আহ্বায়ক মোঃ কামরুল আহসান সরকার রাসেল। যে কোন উপায়ে যুব সমাজকে মাদকের কালো থাবা থেকে ফিরিয়ে আনার কথা বলেন তিনি। যুবলীগ এ নেতা বলেন, গাজীপুর মহানগর যুবলীগের দায়িত্বভার গ্রহণের সময় যুবকদের উদ্দেশ্য বলেছিলাম' এসো বন্ধু যুবলীগ করি, মাদক মু্ক্ত সমাজ গড়ি'। যুব সমাজকে মাদক থেকে বিমুখ করতে আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বলেও জানান এ নেতা। যুবসমাজকে নষ্ট ও বিগড়ানোর নেপথ্যে রয়েছে এ মাদক। যুবলীগের একজন কর্মী হিসেবে যুবসমাজ রক্ষার্থে মদ সহ অন্যন্যা মাদকদ্রব্য নিষিদ্ধ ও বন্ধের দাবি জানান তিনি।

এদিকে গাজীপুর মেট্রোপলিটনের ডিসি ক্রাইম (উত্তর) জাকির হাসান জানান, অবৈধ কোন মদের বার গাজীপুর মহানগরে থাকবে না। সকল প্রকার মাদকদ্রব্যে নির্মূলের তৎপর রয়েছে জিএমপি পুলিশ।

এমএসি/আরএইচ